কানসাটে ঈদের বাজার করতে মানুষের ঢল

শিবগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধিঃ


করোনাভাইরাস যুদ্ধে ঘরে থাকার নির্দেশনা মানছেন না অনেকেই। যথাযথভাবে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্বও। নিয়ম ভেঙে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় শিবগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন কাঁচাবাজার ও পণ্যের দোকানে জনসাধারণের অবাধে চলাফেরা বেড়েছে।তাছাড়া ঈদকে সামনে রেখে শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাট বাজারে দেখা গেছে উপচেপড়া ভিড়।

মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্বও

বাড়ির বাইরে আসা মানুষদের অনেকের মুখে মাস্ক থাকলেও একে অপরের গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে বাজার করছেন। যতই দিন যাচ্ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা জ্যামিতিক হারে বাড়ছে, উল্টোদিকো ততোই বেশি মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরদারি এড়িয়ে বিনা প্রয়োজনেও ঘর থেকে রাস্তায় বের হচ্ছেন কেউ কেউ।

অলিগলিতে জটলা পাকিয়ে গল্প-আড্ডায় সময় কাটাচ্ছেন অনেকে। জরুরি কাজে নিয়োজিত পরিবহনের বাইরে ব্যক্তিগত গাড়ি, অটোরিকশা চলাচল ও গ্রামের দৃশ্য দেখে মনেই হয় না, করোনা বলে কিছু আছে।

ঈদের আনন্দে মার্কেট এর চিত্র

জেলার বিভিন্ন কাঁচাবাজারে দেখা যায়, বাজারজুড়ে মানুষের ভিড়। মাছের দোকান,মাছের আড়ৎ কিংবা সবজির দোকান সব খানেই ক্রেতার সমাগম। বাজার করতে এসে নিরাপদ দূরত্বের তোয়াক্কা করছেন না অনেকেই। কেউ কেউ হাতে গ্লাভস না পরে শুধু মুখে মাস্ক পরে এসেছেন। অনেকের আবার মুখে মাস্কও নেই। তারা একে অপরের পাশে দাঁড়িয়ে বাজার করছেন। যদিও ক্রেতা ও বিক্রেতাদের দাবি-পরিস্থিতির কারণে ঠিকমতো দূরত্ব রক্ষার নিয়ম মানছেন না তারা।

জেলার বিভিন্ন এলাকায় দেখা গেছে, অলিগলিতে বিভিন্ন বয়সী মানুষের আড্ডা। বিশেষ করে গ্রামের টি স্টলগুলোতে তরুণ ও কিশোরদের আড্ডা দেখে মনে হয়েছে তাদের মধ্যে করোনাভাইরাসের কোনো ভয় বা আতঙ্ক নেই।

ঈদের মহাউৎসব

মুদি দোকানগুলোতেও ভিড় লেগেই আছে। নিয়মরক্ষায় অনেকে মাস্ক পরলেও সঠিকভাবে সামাজিক দূরত্ব বলতে কিছুই মানছে না তারা। অন্যদিকে শহরের মূল সড়কগুলোতেও সাধারণ মানুষের সমাগম লক্ষ্য করা গেছে। নিবিশ্বরোড়, বড় ইন্দারা মোড়, পুরাতন বাজার, শিবগঞ্জ বাজার, কানসাট বাজারে দেখা যায়, সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছে রিকশা, অটোরিকশা। পাশাপাশি জরুরি কাজে নিয়োজিত পরিবহনের বাইরে ব্যক্তিগত গাড়ির চলাচল বেড়েছে অনেক বেশি।

এদিকে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা, পুলিশ ও ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে গণসচেতনতার জন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে মাইকিং করা হচ্ছে। বাইরে বের না হতে নানাভাবে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে কাজ করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা। দিন দিন আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়তে থাকলেও জনসাধারণের সচেতনতা ও বাড়ির বাইরে বের হওয়ার কারনে আগামীতে ভয়াবহ পরিস্থিতির তৈরি হবে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

দেশেরকথা/প্রতিনিধি

Tags: